বিকিনি পরিহিতা পাঁচ বঙ্গতনয়াকে দেখলে নিজের ঠিক রাখতে পারবেন তো? ছবিসহ)

বলিউডে নায়িকাদের বিকিনি পরাটা জলভাত হলেও টলিউডে কয়েকবছর আগে পর্যন্ত ভাবা যেত না৷ এখন বাংলা ছবি অনেক সাবালক৷ ঋতুপর্ণা থেকে শুরু করে স্বস্তিকা, পার্নোরা অনায়াসেই বিকিনিতে শরীর গলাচ্ছেন৷ আজ এমনই পাঁচ টলিউডি নায়িকার বাংলা ছবিতে বিকিনি পরার গল্প বলব আমরা৷

পাওলি দাম: টলিউড থেকে বলিউড সর্বত্র অভিনয় দক্ষতায় অবাধ বিচরণ করে বেড়ানো এই অভিনেত্রী অনস্ক্রিন বিকিনি পরেছিলেন ‘হেট স্টোরি’ ছবিতে৷ সেখানে একাধিক দৃশ্যে বিকিনি পরে দেখা গিয়েছিল৷ এছাড়াও একাধিক ফটোশুটে বিকিনি কিংবা প্রায় বিকিনির মতোই পোশাক পরে পোজ দিয়েছেন পাওলি৷

ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত: ‘তৃষ্ণা’ ছবিতে ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তের সাহসী অ্যাপিয়ারেন্সের জন্য সকলে তাঁকে সাধুবাদ দেবেন নিশ্চয়৷ সেই সঙ্গে তিনি বাঙালি নায়িকাদের বিকিনি পরার ক্ষেত্রে পথ প্রদর্শকের কাজ করেছিলেন৷ যতই তাঁর ‘ডিশেপড’ কিংবা বিকিনি পরার তুলনায় একটু স্থূল দেহ নিয়ে সমালোচনা করা হোক না কেন ঋতুপর্ণা যে সময়ের থেকে অনেকখানি সাহসিকতার পরিচয় দিয়েছিলেন একথা সকলে মানবেন৷

স্বস্তিকা মুখোপাধ্যায়: এই মুহূর্তে টলিউডের যে কোনও বিতর্কের কেন্দ্রবিন্দুতে যেন এই একটাই নাম৷ পোশাক থেকে শুরু করে ব্যক্তিগত সম্পর্ক সব কিছুই তাঁকে টিআরপির তুঙ্গে রেখেছে৷ বিকিন পরার ক্ষেত্রে তিনি নতুন করে সাহসিকতা দেখিয়েছেন বলা যাবে না৷ কারণ মৈনাক ভৌমিকের ‘আমি আর আমার গার্লফ্রেন্ডস’র এ বড় পর্দায় তিনি প্রথম বিকিনি পরলেও তার আগে একাধিক ফটোশুটে বিকিনিতে দেখা গেছে তাঁকে৷

পার্নো মিত্র: বাণিজ্যিক নয়, অফবিট চরিত্রই পছন্দ পার্নোর৷ সেটা একটু শহুরে গোছেরও হতে পারে৷ যেমন ‘আমি আর আমার গার্ল ফ্রেন্ডস’৷ সেখানে স্বস্তিকার মতোই বিকিনি পরেছিলেন তিনি৷ এছাড়াও হট প্যান্ট ও অন্তর্বাসে দেখা গিয়েছে তাঁকে৷ এটাই পর্দায় পার্নোর প্রথম বিকিনি পরা৷

রাইমা সেন: রাইমা সেন খুব একটা সাহসী পোশাকে অবতীর্ণ হন না৷ হলেও সেটা বিকিনির মতো ততটা খোলামেলা পর্যায়ে কখনওই যায় না৷ তবু ‘আমি আর আমার গার্লফ্রেন্ডস’ ছবিতে স্বস্তিকা এবং পার্নোর পাশাপাশি তিনিও বিকিন পরেছিলেন৷ খুব একটা না মানালেও রাইমা যথাসম্ভব বিষয়টা ক্যারি করার চেষ্টা করেছিলেন৷

এছাড়াও যদি বাঙালি অভিনেত্রী কথা ধরা হয় তাহলে কোয়েনা মিত্র, তনুশ্রী দত্ত, বিপাশা বসুরা তো হরদম বলিউডি ছবিতে খুব সহজেই বিকিনি পরছেন৷

Comments are closed.